1. admin@sonerbanglanews24.com : admin :
সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:৩৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
বল্লা ১৬দলীয় ফুটবল টুর্নামেন্ট এর সেমিফাইনালে কৃষ্ণচন্দ্রপুর ফুটবল একাদশ সরকারি চাকরির বয়সে ৩৯ মাস ছাড় ইউক্রেনে আরও ৩ লাখ সেনা সমাবেশের ঘোষণা দিলেন পুতিন ছাদখোলা বাস প্রস্তুত নারী ফুটবল দলের জন্য গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের নতুন সচিব কাজী ওয়াছি উদ্দিন। বল্লা ১৬দলীয় ফুটবল টুর্নামেন্ট-২০২২ এর ২য় ম্যাচে ট্রাইবেকারে জিতল সোনাকুড় ফুটবল একাদশ বল্লা ১৬দলীয় ফুটবল টুর্নামেন্ট এর উদ্ভোধনী ম্যাচে ২-০গোলে মাটিকোমরা ফুটবল একাদশের জয় বেশি ভাবতে গিয়ে সর্বনাশ হয়েছে ভারতের আগষ্টে রেকর্ড পরিমাণ রেমিট্যান্স। ১৯হাজার ৩৬১কোটি টাকা টিকে থাকার লড়াইয়ে আজ শ্রীলঙ্কার মুখোমুখি বাংলাদেশ – ওপেনিংয়ে পরিবর্তনের আভাস

এসআই বাবা ও ক্যাপ্টেন মেয়েকে সম্বর্ধনা

বিশেষ প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : বুধবার, ১১ আগস্ট, ২০২১
  • ১৮৯ বার পঠিত

বাবা আবদুস সালাম পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই)। তার মেয়ে সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন শাহনাজ পারভিন। প্রশিক্ষণ শেষে র‍্যাংক ব্যাজ পরিয়ে দেওয়ার সময় তাদের স্যালুট বিনিময়ের ছবি ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে ব্যাপক আলোচিত হয়। সেই বাবা-মেয়েকে সংবর্ধনা দিলেন রংপুর রেঞ্জের ডিআইজি দেবদাস ভট্টাচার্য। বুধবার (১১ আগস্ট) দুপুরে ডিআইজি কার্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে ক্রেস্ট দিয়ে তাকে সংবর্ধিত করেন ডিআইজি।

ডিআইজি দেবদাস ভট্টাচার্য বাবা ও মেয়েকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন ‘এসআই আব্দুস সালাম একজন গর্বিত বাবা যিনি অনেক কষ্ট করে মেয়েকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজে লেখাপড়া করিয়ে ডাক্তার হতে সহায়তা করেছেন। আর তার মেয়ে শাহনাজ পারভিন নিজ যোগ্যতায় সেনাবাহিনীতে ক্যাপ্টেন পদে যোগদান করে শুধু তার বাবাকে নয়, পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের গর্বিত করেছেন। পুলিশ বাহিনীর সুনাম বৃদ্ধি করেছেন। মেয়েকে বাবার স্যালুট দেওয়ার অভূতপুর্ব দৃশ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কল্যাণে দেশ-বিদেশে ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হয়েছে। আমরা চাই, দেশসেবায় একজন আদর্শ মানুষ হিসেবে ক্যাপ্টেন শাহনাজ পারভিন তার বাবার মুখ উজ্জ্বল করবেন।’

ক্যাপ্টেন শাহনাজ পারভিনের হাতে ক্রেস্ট তুলে দিচ্ছেন ডিআইজি দেবদাস ভট্টাচার্য সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ক্যাপ্টেন শাহনাজ পারভিন বলেন, ‘আমি পুলিশ সদস্য আবদুস সালামের মেয়ে হিসেবে নিজেকে গর্বিত মনে করি। আমার বাবা আমাদের কাছে আদর্শ। তার চেষ্টাতেই আমি লেখাপড়া শেষ করে এমবিবিএস পাস করে সেনাবাহিনীতে ক্যাপ্টেন পদে যোগদান করেছি। আমার আরও দুই বোন আছে। তাদের একজন মেডিক্যাল কলেজে পড়ছে। আর একজনও লেখাপড়া করছে। আমার বাবা শত ব্যস্ততার মধ্যেও আমাদের লেখাপড়ার খোঁজখবর নেন।’ তিনি ডিআইজিসহ সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, ‘এ সম্মান আমার জীবনে পাথেয় হয়ে থাকবে।’

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন– রংপুর রেঞ্জের অ্যাডিশনাল ডিআইজি (অ্যাডমিন অ্যান্ড ফিন্যান্স) শাহ মিজান শাফিউর রহমান, অ্যাডিশনাল ডিআইজি (অপারেশনস অ্যান্ড ক্রাইম) ওয়ালিদ হোসেন, রংপুর রেঞ্জ অফিসের পুলিশ সুপার (এস্টেট অ্যান্ড ওয়েলফেয়ার) আব্দুল লতিফ, পুলিশ সুপার (অপারেশনস অ্যান্ড ট্রাফিক) শহিদুল্লাহ কাওসার, পুলিশ সুপার খন্দকার খালিদ বিন নুর, পুলিশ সুপার (মিডিয়া অ্যান্ড ক্রাইম অ্যানালাইসিস) আকতার হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিসিপ্লিন অ্যান্ড প্রসিকিউশন) শরিফুল আলম, সহকারী পুলিশ সুপার (স্টাফ অফিসার টু ডিআইজি) জাহিদুল ইসলাম প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ সোনার বাংলা নিউজ ২৪
Thems Customized By Shakil IT Park